অভিনেতা শুভম নন্দী-র সঙ্গে এক্সক্লুসিভ ইন্টারভিউ - Banglar Utsab

অভিনেতা শুভম নন্দী-র সঙ্গে এক্সক্লুসিভ ইন্টারভিউ – Banglar Utsab

অভিনেতা শুভম নন্দী-র সঙ্গে এক্সক্লুসিভ ইন্টারভিউ – Banglarutsab

প্র: তোমার ইদানিং এর কাজ গুলো সম্পর্কে যদি কিছু বলো?

উ: আমার প্রথম কাজ আমি ডিরেক্টর অনুমিতা দাশগুপ্তর একটি ফিচার করেছি, ওটা আমার প্রথম কাজ, খুব ছোট একটা ভূমিকা এ ছিলাম।

আর বর্তমানে আমি “Moving Reels Entertainment” ব্যানার এ ডিরেক্টর ‘সায়ন বসুর’ একটি ছবি তে প্রধান চরিত্রের কাজ করলাম। যার ডাবিং ও প্রায় শেষ। চার চারটি গল্প নিয়ে এই ছবি। এই ছবিতে বিবৃতি চ্যাটার্জী, শ্রীতমা দে, পায়েল সরকার, ঈশান মজুমদার ছাড়াও আরো অনেকে আছেন। আমার গল্পে আমার সাথে আছে অয়ন্তিকা। আর সবথেকে বোরো জিনিস এই ছবির মধ্যে যে, প্রত্যেক টি ক্যারেক্টার এর আলাদা আলাদা গল্প আছে।

প্র:ছবিটা সম্পর্কে যদি আমাদের কিছু বলো। …

উ: এখনই এই ছবি নিয়ে বেশি কিছু বলতে পারবো না , সময় হলে পুরো ছবি নিয়ে আলোচনা করবো। শুধু এই টুকু বলি যে সায়ন দার সাথে এটা আমার প্রথম কাজ। ওর মতো একজন ডিরেক্টর আমাকে আমার পুরো কাজ করার স্বাধীনতা দিয়েছে, যেটা যখন অভিনেতার সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। তাই এটাই বলবো যে আমি খুবই খুশি সায়ন দা আর পুরো টীম এর সঙ্গে কাজ করে।

প্র: আচ্ছা শুভম, তোমাকে তোমার যে ক্যারিয়ার – অভিনয়, কে তোমাকে তোমার এই ক্যারিয়ার বেছে নিতে বা ‘এই ক্যারিয়ার এ আসতে সবচেয়ে বেশি সাপোর্ট করেছে ?

উ: বাবা, সত্যি কথা বলতে বাবা আমাকে ছোটো বেলা থেকেই কোনোদিনই কোনো কিছুতে বাধা দেয় নি. শিলিগুড়ি থাকতে যখন আমি থিয়েটার করতাম, বাবার হাত ধরেই প্রথম শিলিগুড়ি থিয়েটার যোগ দেই। পরবর্তীতে ২০১৫ তে যখন আমি কলকাতায় প্রথম ক্যামেরার সামনে কাজ করবো বলে অডিশন অংশগ্রহণ করি, সেদিন ও বাবা আমাকে সম্পূর্ণ ভাবে সাপোর্ট করেছে। এমনকি এখনো শুটিং থেকে এসে কাজ কেমন হলো , প্রথম ফোন টা বাবাকেই করি। এখনো আমি তেমন কিছু করতে পারি নি, তবে ভবিষ্যতে যেই জায়গায় পৌঁছাই তার সম্পুন্ন ক্রেডিট বাবা – মা দুজনেরই।

প্র: শুভম যদি তুমি অভিনয় জগৎে না আসতে তবে কোন ক্যারিয়ার টা বেছে নিতে?

উ: এটা তো বলা মুশকিল , ছোট বেলা থেকে যত বড়ো হয়েছি ধাপ এ ধাপ এ ইচ্ছে গুলো পাল্টেছে। ৪ – ৫ ক্লাস পড়াকালীন তো ভাবতাম সায়েন্টিস্ট হবো পরবর্তীতে ভাবলাম এটা আমার জন্য না। তারপরেই সায়েন্টিস্ট থেকে ইচ্ছে টা পরিবর্তন হয়েছিল ডক্টর এ। যদিও বোর্ড পরীক্ষা দেয়ার পর কমার্স নিয়ে নিলাম।

প্র: তুমি তোমার থেকে যারা বড়ো অভিনেতা, যাদের সাথে তুমি কাজ করেছো।..তাদের সঙ্গে কাজ করে কি শিখেছো ???

উ: দেখো আমি যখন প্রথম FTI তে কাজ করি তখন আমার টিচার ছিলেন সৌমিত্র চ্যাটার্জী, অতনু ঘোষ, অনুমিতা দাসগুপ্ত। তাই যতটা ক্যামেরার সামনে কাজ এখন পর্যন্ত জানি পুরোটাই তাদের জন্য। পরবর্তীতে অনুমিতা ম্যাডামের ছবিতে সৌমিত্র চ্যাটার্জী ও ব্রাত্য বসুর সাথে স্ক্রিন শেয়ার করার একটা আলাদাই অভিজ্ঞতা।

সায়ন দার সাথে কাজ করেও আমি অনেকটা শিখেছি। আমি একটা জিনিস আমি জানি শিখবো যত বাড়বে ততো। ইদানিং আমি রবীন্দ্র ভারতী উনিভার্সিটি থেকে “Drama and Film Media” এর উপর মাস্টার্স করছি। তাই সেখান থেকে তো প্রতিনিয়ত শিখে যাচ্ছি।

প্র: আচ্ছা, কি ধরণের অভিনয় করতে তুমি বেশি ভালোবাসো?

উ: দেখো আমার প্রিয় অভিনয় যদি বলি সেটা নেগেটিভ 😅 কিন্তু দুঃখের বিষয় এখনো আমাকে সেই অভিনয় করার সুযোগ দেয় নি। এটাও জানিনা ভবষ্যতে সেই ধরণের অভিনয় করার সুযোগ পাবো কিনা।

প্র: কোন ধরণের অভিনয় করাটা তোমার কাছে বেশি চ্যালেঞ্জিং বলে মনে হয় ?

উ: সায়ন দার ছবিতে আমার ক্যারেক্টার টা বেশ চ্যালেঞ্জিং ছিল। কারণ এই চরিত্রে ভাঙার একটা ব্যাপার ছিল, যেটা বেশ চ্যালেঞ্জিং।
তাছাড়া এখন পর্যন্ত সেরকম কাজ আমি পাই নি। ইচ্ছে তো আছে চ্যালেঞ্জিং রোলে অভিনয় অবশ্যই করার।

প্র: তোমার ভবিষ্যত এর কাজ নিয়ে যদি আমাদের ‘সাথে একটু শেয়ার করো। …

উ: দেখো যেহেতু আমি ড্রামায় মাস্টার্স করছি , তাই সেরকম ভাবে অডিশন এ এটেন্ড করার সুযোগ পাচ্ছি না বললেই চলে। তবে একটা webseries এর কথা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত অবশ্য সেটা ফাইনাল হয় নি।

প্র: আমাদের অনেক ভিউয়ার আছে যারা অভিনয় জগৎে আস্তে চায়। …তাদের জন্য যদি তোমার তরফ থেকে কোনো বার্তা দাও। …

উ: যারা অভিনয় জগতে আস্তে চায় বা আমার মতোই স্ট্রাগলিং পিরিয়ড এ আছে , তাদের উদ্দেশ্যে বলছি এর শেষ দেখে ছাড়বে। হাল একদম ছাড়বে না , অনেক ইগনোরেন্স আসবে জীবনে। শুধু মোটিভে তোমাকে ঠিক রাখতে হবে। আর হ্যা যদি অভিনয় সত্যি করতে চাও তবে থিয়েটার যোগদান করা অবশ্যই দরকার। থিয়েটার একজনকে পুরোপুরি ভাঙতে শেখায় , যেটা অন্যকোথাও শেখা যায় না।

অসংখ ধন্যবাদ শুভম আমাদের খাণিক সময় দেবার জন্য। বাংলার উৎসব এর তরফ থেকে তোমাকে আগামী জীবনের জন্য অনেক অনেক শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা। (banglarutsab.co.in, A Online News Portal)