শেষ দিনে জেলাতে মনোনয়ন পত্র জমা পড়লো ৮১টি, যার মধ্যে শাসক দলের ১৭টি আর বিজেপির ১৩টি – Banglar Utsab

বিজ্ঞাপন

পিনাকী রঞ্জন পাল, জলপাইগুড়ি, ২৪ এপ্রিল : হাইকোর্টের নির্দেশ মেনে সোমবার রাজ্য জুড়ে বেলা ১১টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত মনোনয়ন জমা নেওয়া হয়। মনোনয়ন পর্ব যাতে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ সম্পন্ন হয়, নির্বাচন কমিশনকে সেদিকে দেখার নির্দেশ হাইকোর্ট দিলেও এড়ানো গেল না গন্ডগোল। মনোনয়নের শেষ দিনে জলপাইগুড়ি সদর বিডিও অফিস, মালবাজার সহ গোটা জেলা জুড়েই বিরোধীদের উপর হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে শাসকদলের বিরুদ্ধে। এরআগে জলপাইগুড়ি বিডিও অফিসে কোনরকম গন্ডগোল না হলেও, সোমবার সকাল থেকেই এই এলাকায় উত্তেজনা ছিল চরমে। বিরোধীদের বিডিও অফিসে ঢুকতে না দেওয়া, মারধোর করা, মনোনয়ন পত্র ছিঁড়ে ফেলা, প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া, মহিলাদের শ্লীলতাহানি কোন অভিযোগই বাদ ছিল না শাসক দলের বিরুদ্ধে। যার ফলস্বরূপ সারাদিনে মাত্র একটা মনোনয়ন জমা পরে জলপাইগুড়ি বিডিও অফিসে, সেটাও তৃণমূলের। মনোনয়ন শেষে জেলাশাসকের দেওয়া তালিকা অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে যে সোমবার জলপাইগুড়ি জেলাতে গ্রাম পঞ্চায়েতে ৫২টি (যার মধ্যে তৃণমূলের ১১টি, বিজেপি ১১টি, সিপিআইএম ১০টি, কংগ্রেস ২টি, ফরওয়ার্ড ব্লক ১টি, নির্দল ১১টি, অন্যান্য ৬টি) মনোনয়ন পত্র জমা পড়েছে। সোমবার নিয়ে গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৩৪৭টি আসনের জন্য মোট ৩৯৯৯টি মনোনয়ন জমা পড়েছে ( যার মধ্যে তৃণমূল ১৪৯৬ এবং বিজেপি ১২৪৯)।

জিলা পরিষদে ১১টি (যার মধ্যে তৃণমূলের ১টি, বিএসপি ২টি, বিজেপি ২টি, সিপিআইএম ১টি, কংগ্রেস ২টি, অন্যান্য ৩টি) মনোনয়ন পত্র জমা পড়েছে। সোমবার নিয়ে জিলা পরিষদের ১৯টি আসনের জন্য মোট ১২০টি মনোনয়ন জমা পড়েছে ( যার মধ্যে তৃণমূল ৩১ এবং বিজেপি ২৯)।

পঞ্চায়েত সমিতিতে ১৮টি (যার মধ্যে তৃণমূলের ৫টি, বিজেপি ০টি, সিপিআইএম ৬টি, কংগ্রেস ৩টি, নির্দল ১টি, অন্যান্য ৩টি) মনোনয়ন পত্র জমা পড়েছে। সোমবার নিয়ে পঞ্চায়েত সমিতির ২৩৪টি আসনের জন্য মোট ৮৫৬টি মনোনয়ন জমা পড়েছে ( যার মধ্যে তৃণমূল ৩১৯ এবং বিজেপি ২৪০)।

You May Also Like