বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশনি বন্ধে সরকারের পদক্ষেপ – Banglar Utsab

বাংলার উত্‍সব ডিজিটাল ডেস্ক: এপ্রিল মাসের ৩০ তারিখের মধ্যে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষাকর্মীদের সম্পত্তির যাবতীয় তথ্য শিক্ষা দপ্তরে জমা দিতে হবে। শুধু নিজের জমি-বাড়ি নয়, নিকট আত্মীয়দের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তির বিবরণও জমা দিতে হবে শিক্ষকদের। এর ফলে বিদ্যালয়ের একাংশ শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশনের রাস টানা যাবে বলে মত অভিজ্ঞ মহলের। অভিযোগ, বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের একটি বড় অংশ এখনও চুটিয়ে প্রাইভেট টিউশন চালিয়ে যাচ্ছেন। সরকারি নির্দেশিকা অমান্য করে প্রকাশ্যে বাড়িতে ব্যাচ করে অথবা কোচিং সেন্টারের মাধ্যমে টিউশন করে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ।

অথচ প্রাইভেট টিউশন মারফত্ যে আয় করছেন শিক্ষকেরা তার আয়কর রিটার্ন জমা দিচ্ছেন না। একটি বিদ্যালয়ের চাকরী করছেন অন্যদিকে চুটিয়ে প্রাইভেট টিউশন করছেন। অথচ শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশন সহ অন্যান্য কোন ব্যবসা করা আইনত অপরাধ। প্রাইভেট টিউশন করলেও শিক্ষকদের বাড়িতে আয়কর হানার নজির সেভাবে পাওয়া যায় না। তাই প্রাইভেট টিউশনের মাধ্যমে অর্থ উপার্জনকে নিরাপদ বলে মনে করছেন একাংশ শিক্ষক। সম্পত্তির হিসাব পেশ করার মাধ্যমে শিক্ষকদের টিউশনের রাশ টানা যাবে বলে মনে করছে শিক্ষা দপ্তর। অভিযোগ, রাজ্যের বিভিন্ন শহরের নামিদামী স্কুলের একাংশ শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে বেশি ফি নিয়ে টিউশন পড়ান।

প্র‌্যাক্টিকালে অথবা প্রজেক্টে বেশি নম্বর পাওয়ার আশায় ছাত্র-ছাত্রীরা নামিদামী স্কুলের শিক্ষকদের কাছে টিউশন পড়ার জন্য ছুটে। অথচ বহু শিক্ষিত ছেলে-মেয়েরা ভালো পড়িয়েও প্রাইভেট টিউশন পড়ানোর সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। শিক্ষকদের একাংশ প্রাইভেট টিউশন করায় তারা বিদ্যালয়ে নমঃ নমঃ করে ক্লাস নিয়ে টিউশনির ব্যাচে গিয়ে নিজের সেরাটা দেন বলে অভিযোগ। তাই টিউশনি বন্ধের যে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার তাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সর্বস্তরের মানুষ।

সৌজন্যে মৌপাল নিউজ 

You May Also Like